Facebook

ফেসবুক বুস্ট কি? কিভাবে করবেন? কিভাবে বুস্ট করলে ভালো ফলাফল পাওয়া যায় দেখে নিন এই পোস্টে!!!

আমাদের হয়তো অনেকেরই ফেসবুক পেজ আছে। আমরা খুব সহজেই ফেসবুক পেজ খুলতে পারি। ফেসবুক পেজ এর মাধ্যমে আমরা আমাদের ব্যাবসা এর প্রচার খুব সহজেই করতে পারি। আমরা সবাই জানি যে ব্যাবসায় এ প্রচারেই প্রসার। তাই অফলাইনে প্রচার এর পাশাপাশি অনলাইনে প্রচার ভালো পরিমাণে ফলাফল দেয়। আমরা যখন আমাদের ব্যাবসায় এর জন্য নতুন কোনো কিছু নিয়ে আসি যেমন নতুন পন্য তখন এই ফেসবুক বুস্টিং বিজ্ঞাপন এর মাধ্যমে খুব সহজে সবার মাধ্যমে ছড়িয়ে দিতে পারি। আজকে আমি এই টিউটোরিয়াল টি ফেসবুক বুস্টিং এর সিকল বিষয় তুলে ধরার চেষ্টা করবো। আশা করি সবাই টিউটরিয়াল টি চালো করে পড়বেন।তাহলে চলুন শুরু করি।

ফেসবুক বুস্টিং কি?

আমরা যদি সহজ ভাষায় বলতে চাই তাহলে বলা যায় যে ফেসবুক বুস্টিং হলো সহজে অনলাইন এ আপনার ব্যাবসার জন্য বিজ্ঞানপন দেওয়ার মাধ্যম। আপনি এই মাধ্যমে আপনার ব্যাবসায় এর জন্য খুব ভালো ভাবে বিজ্ঞাপন দিয়ে পারবেন খুব সহজে। আপনি যদি আপনার পেজ টি ফেসবুকের মাধ্যমে বুস্ট করেন তাহলে আপনাকে আপনার পেজের একটি পোস্ট সিলেক্ট করতে হবে। সেই পোস্ট অটোমেটিক সবার নিউজ ফিড এবং অন্নান্য জায়গায় শো করবে। এই ফেসবুক বুস্ট গুলোর দ্বারা আপনার পেজের জন্য ফোলোয়ার পাবেন। আপনার পেজ টি যত বেশি জনপ্রিয় হবে আপনি তত ভালো অই পেজ থাকে কাস্টমার পাবেন। আপনার পেজ বুস্টিং এর মূল উদ্দেশ্য হলো মানুষ যেনো আপনার ব্যাবসায় সম্পর্কে জানতে পারে। আপনি যদি একটি ব্যাবসায় শুরু করেন এবং প্রচার না করেন তাহলে আপনি কখোনও কাস্টমার পাবেন না। তাই আপনাকে প্রচার এর জন্য ভালো ভাবে বিজ্ঞাপন দিতে হবে। আপনি অফলাইনে যেমন বিজ্ঞাপন দিবেন তেমনি অনলাইনে ও চালো বিজ্ঞান দিতে হবে। তাহলেই আপনি ভালো ভায়াবে আপনার ব্যাবসায় এর জন্য কাস্টমার পেয়ে সফল হবেন। উপরে বলা হয়েছে যে বুস্ট বলেতে একধরনের বিজ্ঞাপন দেওয়ার মাধ্যম।

কেন আপনি ফেসবুক বুস্টিং করবেন? ফেসবুক বুস্টিং করে কি ফলাফল পাওয়া যায়?

আপরা আগের টপিকে জেনেছি যে ফেসবুক বুস্টিং হলো একধরনের বিজ্ঞাপন এর মাধ্যম। যার মাধ্যমে আপনি আপনার ব্যাবসায় এর জন্য খুব সহজে বিজ্ঞান দিতে পারবেন। এই টপিক আমি আলোচনা করবো ফেসবুক বুস্টিং এর গুরুত্ব। তাহলে চলুন শুরু করি। আমাদের মাঝে যারা ব্যাবসায়ী আছি তারা একটি কথা সবাই জানি যে ব্যাবসায় এর প্রচারেই প্রসার। আপনি যত প্রচার করবেন আপনার ব্যাবসায় প্রতিষ্ঠান ততই প্রসার লাভ করবে। আপনি যদি সঠিক ভাবে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন তাহলে খুব সহজে আপনি আপনার ব্যাবসায় এর জন্য কাস্টমার পাবেন। এক্ষেত্রে বিজ্ঞাপন এর মাধ্যমের দিকে আমাদের সবাইকে ভালো মনোযোগ দিতে হবে। আমরা এখন বিজ্ঞাপন এর মাধ্যম হিসাবে ২ টি মাধ্যম বেচে নিয়েছি একটা হলো অফলাইন আর একটা হলো অনলাইন। অনেকেই অফলাইনের মাধ্যমে কিভাবে বিজ্ঞাপন দিতে হয় তা জানি। কিন্তু অনেক অনলাইন এর দিতে জানি না। এখন অনলাইনের ফেসবুক এর মাধ্যমে বুস্টিং এর কিছু গুরুত্ব জেনে নেই। আপনি এখানে খুব সহজেই অল্প খরচে বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন। আপনাকে এই বিজ্ঞাপন দেওয়ার ক্ষেত্রে বেশি ঝামেলা পোয়াতে হবে না। আপনি যেকোনো জায়গায় থেকেই এই বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনাকে কোনো যায়গায় জেতে হবে না তাই আপনার সময় বেচে গেলো। আপনি এর মাধ্যমে আপনার ব্যাবসায় এর টার্গেট কাস্টমার পাবেন।

কিভাবে ফেসবুক বুস্টিং করবেন

আপনি চাইলে ফেসবুকের অফিসিয়াল অ্যাপ থেকেই ফেসবুক বুস্টিং করতে পারবেন। বুস্টিং করা খুব সহজ। কিন্তু এখানে বাংলাদেশিদের জন্য মেইন প্রব্লেম হলো পেমেন্ট পদ্ধতি। আপনি এখানে দেশিয় পদ্ধতি তে পেমেন্ট করতে পারবেন না। ফেসবুক যেহেতু বিদেশি কোম্পানি সেহেতু এখানে আপনি দেশিয় পদ্ধতি (যেমন নগদ, বিকাশ, রকেট ইত্যাদি) দিয়ে পেমেন্ট করতে পারবেন না। আপনাকে অবশ্যই এখানে বিদেশি method এর মাধ্যমে পেমেন্ট করতে হবে। আপনি চাইলে ভিসা কার্ড বা মাস্টার কার্ড এর মাধ্যমে পেমেন্ট করতে পারবেন। তবে বাংলাদেশে তো আর সবার মাস্টার বা ভিসা কার্ড নেই তাহলে কি যে কেউ ফেসবুক বুস্টিং করতে পারবে না??? হুম অবশ্যই পারবে। বাংলাদেশে অনেকেই ফেসবুক বুস্টিং সেবা দিয়ে থাকে। আপনি ইচ্ছা করলে তাদের কাছ থেকে এই সেবা টা নিতে পারবেন এবং বিকাশ এর মাধ্যমে পেমেন্ট করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই কোনো ট্রাস্টেট ব্যাক্তি বা সংস্থা নির্বাচন করতে হবে।

ফেসবুক বুস্টিং কিভাবে করলে আপনি সফল হবেন?

আমরা যারা ফেসবুক বুস্টিং করি তারা কিন্ত ব্যাবসায় এর জন্য করি। ব্যাবসায় এর জন্য ফেসবুক বুস্টিং করলে লাইক না দরকার হয় কাস্টমার। আপনার ব্যাবসায় কে সফল ভাবে চালাতে হলে আপনার দরকার হবে ভালো পরিমানের কাস্টমার এর। ফেসবুক বুস্টিং এর মাধ্যমে আপনি কাস্টমার এর সন্ধান করতে পারবেন যদি আপনি ভালো ভাবে এই বুস্টিং করতে পারেন। চলুন একটি উদাহরণ এর মাধ্যমে বিষয়টি বুঝি।

মনে করুন আপনি একজন টি-শার্ট বিক্রেতা। আপনি ফেসবুকে বুস্টের মাধ্যমে আপনার ব্যাবসায় এর প্রসার করতে চান। আপনাকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় খেয়াল রাখতে হবে। তাহলে আপনি সুন্দর ভাবে আপনার ব্যাবসায় এর জন্য কাস্টমার এবং প্রসার করতে পারবেন।

আপনার লাইক না দরকার হলো কাস্টমার। আপনাকে অবশ্যই ভালো ভাবে বুস্ট করতে হবে। আপনাকে ফাস্ট নির্বাচন করতে হবে আপনি কোথায় কোথায় টি শার্ট টি সরবরাহ করতে পারবেন। ধরুন আপনি ঢাকা জেলায় আপনার টি-শার্ট এর সার্ভিস টি দিয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে অবশ্যই লোকেশন ঢাকা দিতে হবে আপনি যদি অন্যান্য জেলায় বা অন্যান্য স্থানের দিয়ে থাকেন তাহলে আপনার সেইটা কাজে আসবেনা। এক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে ঢাকা জেলায় যারা আছে শুধু তারাই হলো আপনার কাস্টমার।

এর পর আপনাকে বয়সের ব্যপার টা খেয়াল রাখতে হবে। আপনার সরবারাহকৃত পন্য গুলো কিন্ত সকল বয়সের মানুষের জন্য না। আপনি যদি ২০-২৫ বছর বয়সী দের জন্য টি-শার্ট বিক্রি করেন তাহলে আপনার কাস্টমার এর বয়স হলো ২০-২৫ বছর। এক্ষেত্রে বুস্টিং করার সময় এই বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে।

এভাবে সব বিষয়ের ওপর আপনাকে লক্ষ্য রাখতে হবে। প্রত্যেক টি বিষয়ে আপনাকে ভালো ভাবে বিশ্লেষণ করতে হবে। আপনি যদি এভাবে আপনার কাস্টমার নির্নয় করেন তাহলে খুব সহজে আপনি আপনার ব্যাবসায় এর কাস্টমার পেয়ে যাবেন।

admin

আমি সাগর। আমি একজন ব্লগার এবং ইউজার ইন্টারফেজ ডিজাইনার। আমি প্রতিনিয়ত চেষ্টা করি আমার ব্লগের মাধ্যমে নতুন নতুন তথ্য শেয়ার করতে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button