Website

আপনার আর্টিকেল কে আরও সুন্দর এবং এসইও ফ্রেন্ডলি করুন। বিস্তারিত পোস্টে!!

আসসালামুয়ালাইকুম কেমন আছেন আপনারা সবাই আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন আমিও ভাল আছি তা আমাদের ওয়েব সাইটটি ভিজিট করার জন্য আপনাদের স্বাগত জানাই আজকে আমি আপনাদের সামনে আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ টিউটোরিয়াল নিয়ে হাজির হয়েছি তাহলে চলুন শুরু করি

আমরা যারা ওয়েবসাইটে কাজ করি করি তাদের খুব বেশী গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় হল ভিজিটর। ভিজিটর ছাড়া একটি ওয়েবসাইট কল্পনা করা যায় না। আর এই ভিজিটর না থাকলে আপনার ওয়েবসাইটটি কোনদিনও সফল হবে না। আমরা যারা মূলত ওয়েবসাইট নিয়ে কাজ করি তারা এসইও সম্পর্কে ধারণা রাখি। আমরা সবাই জানি এসইও হল সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন। সহজ ভাষায় বলতে যেকোনো ধরনের সার্চ ইঞ্জিনে সার্চ করলে আপনার ওয়েবসাইটটি যেন পাওয়া যায়। সার্চ করলে প্রায় সকলেরই ওয়েবসাইট পাওয়া যায় কিন্তু যেসব ওয়েবসাইট থাকে সার্চ ইঞ্জিন এর প্রথম পেজে থাকে সেসব ওয়েবসাইটে অর্গানিক ভিজিটর প্রচুর আসে। আমরা সবাই জানি প্রথম পেজে কোন ওয়েবসাইট আনা খুব কঠিন কাজ। এসইও এর মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইট টি প্রথমে আনতে পারে। সেহেতু আপনাকে আরোও অনেক কাজ করতে হবে। এসইও মূলত দুই প্রকার অনপেজ এসইও এবং অফ এসইও। এই দুই ধরনের এসইও করে আপনি আপনার ওয়েবসাইট কে সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম রেজাল্ট আনতে পারেন। তো আজকে আমরা অফ পেজ এসইও এর একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় কনটেন্ট নিয়ে আলোচনা করব। কিভাবে আপনি আপনার কনটেন্ট এসইও ফ্রেন্ডলি এবং খুব সুন্দর করতে পারেন তা নিয়ে। এবং আরেকটি পার্টে আমরা অন পেজ এসইও সম্পর্কে আলোচনা করবো তাহলে চলুন শুরু করি।

কন্টেন্ট

আমরা যারা ব্লগিং করি তারা অবশ্যই জানি যে কন্টেন্ট হল সবার রাজা। আপনার কনটেন্ট যত বেশি ভালো হবে আপনি তত বেশি এগিয়ে যাবেন। কন্টেন লেখার ক্ষেত্রে আমাদের খুব বেশি কেয়ারফুল হতে হবে। আপনার কনটেন্ট যদি বড় এবং ভাল হয় তাহলে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনে ভালো ফলাফল করবে। আপনি যখন কন্টেন লিখবেন তখন অবশ্যই আপনাকে যে বিষয়ে কন্টেন লিখবেন সে বিষয়ে পূর্ণ অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। এক্ষেত্রে আপনি যে বিষয়ে পারদর্শী সে বিষয় নিয়ে লিখতে পারেন। তাহলে সেই কনটেন্ট মূলত ভালই হবে। আপনাকে সর্বদা ভিজিটরদের ভালো কিছু কন্টেনের মাধ্যমে দেওয়ার চেষ্টা করতে হবে। যাতে তারা আপনার ওয়েবসাইট টি তে প্রবেশ করতে আগ্রহী হয়।
তাহলে আপনি ভালো পরিমাণে অর্গানিক ভিজিটর পাবেন। অর্গানিক ভিজিটর পেতে হলে আপনাকে অবশ্যই এসইও করতে হবে। আর এস ই ও এর জন্য কন্টেন খুব গুরুত্বপূর্ণ। আর সেই কনটেন্টগুলো এসইও ফ্রেন্ডলি হলে তাহলে আপনি এসইওতে ভাল ফলাফল পাবেন। তো নিচে কয়েকটি ধাপ দেখানো হলো যার মাধ্যমে আপনি এসইও ফ্রেন্ডলি কন্টেন লিখতে পারবেন।

কিওয়ার্ড রিসার্চ

আমরা যখন কোন কিছু খুজি কোন সার্চ ইঞ্জিনে তখন নানা রকম ওয়ার্ড দিয়ে সার্চ করি সোজা ভাষায় সেই ওয়ার্ড গুলোকে কিওয়ার্ড বলা হয় । একটি কন্টেন লিখতে গেলে অবশ্যই আপনাকে কি ওয়ার্ড রিসার্চ করতে হবে। কিওয়ার্ড নির্ধারণের ক্ষেত্রে আপনাকে খুব সতর্ক হতে হবে কারণ এই কী-ওয়ার্ড এর মাধ্যমে আপনি সার্চ ইঞ্জিনের টপে থাকতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনাকে কিওয়ার্ড বাছাই এর জন্য কিছু বিষয় লক্ষ করতে হবে। আপনি এমন কিওয়ার্ড আপনার কন্টেনের জন্য নির্ধারণ করবেন যেগুলোতে বেশি সার্চ করা হয়নি এবং এক্ষেত্রে আরও লক্ষ রাখতে হবে যেন পরবর্তীতে এগুলো জনপ্রিয় হয় বা এখন জনপ্রিয় আছে। এ বিষয়গুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ এই কী-ওয়ার্ড রিসার্চ এর জন্য অনেকগুলো টুল পাওয়া যায়। এর মধ্যে একাধিক টুল হলো পেইড টুল যা আপনাকে টাকা খরচ করে কিনতে হবে আপনি গুগল থেকে এই কী-ওয়ার্ড রিসার্চ এর টুল ব্যবহার করতে পারেন। আর এক্ষেত্রে গুগল আপনাকে সর্বাধিক সুযোগ-সুবিধা দিয়ে থাকবে। আপনি যেখানে পেইড টু লে বাংলা ভাষা কিওয়ার্ড খুজে পাবেন না সেখানে গুগলের ফ্রী টুলে কিন্তু আপনি বাংলা কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে পারবেন। এক্ষেত্রে গুগল কিন্তু আপনাকে ভালো একটি সহযোগিতা দিচ্ছে। তো আপনি যত ভালো গুগোল বা অন্যান্য টুল ব্যবহার করে কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে পারবেন ততবেশি ভালো ফলাফল লাভ করতে পারবেন এসইও তে। আপনার ওয়েবসাইটকে সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম পেজে আনতে তো বোঝাই যাচ্ছে কি-ওয়ার্ড রিসার্চ কতটা গুরুত্বপূর্ণ একটি ওয়েবসাইট এবং একটি কন্টেনের জন্য। তো আপনাকে অবশ্যই সতর্ক থাকতে হবে এবং ভালো কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে হবে।

টাইটেল

একটি কন্টেন লিখতে হলে আমাদের টাইটেল সিলেক্ট করা লাগে। পুরো একটি কন্টেনের ভাষা একটি টাইটেল এর মাধ্যমে প্রকাশ পায়। তাই আপনাকে এমন ভাবে টাইটেল লিখতে হবে যেন আপনার সাইটের ভিজিটর খুব সহজেই বুঝতে পারে যে কি বিষয়ে কনটেন্টটি লেখা হয়েছে। আর টাইটেল কিন্তু এসইও এর ক্ষেত্রে খুব গুরুত্বপূর্ণ তাই এ বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে যে টাইটেল যেন ভালোভাবে আপনার পুরো কন্টেনের ভাষাটি তুলে আনতে সক্ষম হয়। এক্ষেত্রে আপনাকে কন্টেনের সাথে টাইটেলের মিল রাখতে হবে অনেকেই আছে কনটেন্ট এর ভিতরে গেলে একরকম এবং টাইটেল আরেকরকম এগুলো করলে কখনোই আপনি আপনার টিউনটি র‍্যাঙ্ক করতে পারবেন না। তাই আপনাকে অবশ্যই টাইটেল এবং কন্টেন্ট এর মিল রাখতে হবে। আর মনে রাখতে হবে যেন আপনার সাইটের ভিজিটর টাইটেল দেখে আপনার টিউনটি তে প্রবেশ করে কিন্তু টাইটেলের সাথে কনটেন্ট এর মিল না থাকায় বিরক্ত না হয়।
সর্বোপরি বলা যায় আপনাকে অবশ্যই একটি ভালো এবং কন্টেনের সাথে টাইটেল মিল রাখতে হবে।

কিওয়ার্ড যুক্তকরন

আমরা এক্ষেত্রে অনেকেই ভুল করে থাকি যে কোন কিওয়ার্ড যুক্ত করিনা! এবিষয়টি এসইও জন্য আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আপনাকে এ বিষয়ে খুবই গুরুত্ব সহকারে দেখতে হবে। কিওয়ার্ড যুক্তকরণ করতে আপনাকে প্রথমে কন্টেন রিলেটেড কিছু কিওয়ার্ড বাছাই করতে হবে। আপনি সেই কিওয়ার্ডগুলো কন্টেনের উপরের দিকে বোল্ড করে নিবেন। তারপর আপনার প্রত্যেক কনটেন্টের প্যারায় ধরুন প্রত্যেক 100 ওয়ার্ড এর মাঝে আপনার রিসার্চ করা কি ওয়ার্ডের সংখ্যা থাকতে পাঁচটি। এই কী-ওয়ার্ড গুলো আপনার কন্টেন্টটি কে সার্চ ইঞ্জিনে খুঁজতে সহযোগিতা করবে। আপনি প্রধান কিওয়ার্ড সেলেক্ট এর পাশাপাশি আরো কয়েকটি ওয়ার্ড সিলেক্ট করে নিবেন এতে করে আপনার কনটেন্ট এসইও এর জন্য পারফেক্ট হবে।

কন্টেনের সূচিপত্র নির্ধারণ

আমরা যখন কোন বিষয় নিয়ে আলোচনা বা লিখি তখন আমরা একটি সূচিপত্র ব্যবহার করি সেই সূচিপত্র ব্যবহারের মাধ্যমে আমরা যে কোন একটি বিষয়কে খুব সহজেই খুঁজে নিতে পারি। ধরুন আপনি একটি বই লিখেছেন বইটিতে প্রায় 100 টি পৃষ্ঠা রয়েছে এবং সেই বইটির ভিতরে দশটি বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। এখন আপনি যদি এখানে বইটির শুরুতে সূচিপত্র দিয়ে না থাকেন তাহলে আপনার পাঠক বৃন্দ দের অনেক অসুবিধা হবে বইটির মধ্য থেকে সেই 10 টি বিষয় থেকে যেকোনো ১ টি বিষয় খুজতে। আপনি এখানে সুচি পত্র দিলে খুব সহজে যেকোনো বিষয় খুজে পাওয়া সম্ভব। ঠিক এ বিষয়টি আপনাকে কন্টেনের জন্য লক্ষ্য করতে হবে। আপনি বড় একটি কনটেন্ট আপনার ওয়েবসাইটে পাবলিশ করেছেন। এখানে অনেকগুলো বিষয় নিয়ে আলোচনা করা রয়েছে। আপনি কনটেন্ট এর শুরুতে যদি সবগুলো বিষয় সূচিপত্র দিয়ে থাকেন তাহলে ব্যবহারকারীরা খুব সহজেই যে কোন বিষয় পড়তে পারবে। এ বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় এই সূচিপত্র নির্ধারণকে ওয়েবসাইটে আমরা টেবিল অফ কন্টেন বলে থাকি। আর আপনি যদি টেবিল অফ কন্টেন আপনার ওয়েবসাইটের কন্টেনের শুরুতে কোন জায়গায় লাগাতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে একটি প্লাগিন এর সাহায্য নিতে হবে। আপনি আপনার ড্যাশবোর্ড থেকে প্লাগিন অপশনে গিয়ে টেবিল অফ কন্টেন লিখে সার্চ করে একটি প্লাগিন ইন্সটল দিয়ে এই কাজটি করতে পারবেন। আপনি যদি এখনো আপনার কন্টেনের শুরুতে সূচিপত্র বা টেবিল অফ কন্টেন না রাখেন তাহলে এখনি এই কাজটি করে নিন।

thumbnail নির্ধারণ

আপনাকে একটি সুন্দর থাম্বনেল বানাতে হবে আপনার পোস্ট রিলেটেড। আপনি যে বিষয় নিয়ে একটি পোষ্ট লিখেছেন সে বিষয়ের একটি সুন্দর এবং আপনার থিম ফ্রেন্ডলি থাম্বনেল বানাতে হবে। এক্ষেত্রে আপনার সাইটটিকে আরো সুন্দর করবে সেই বানানো thumbnail টি এবং ইউজাররা এক্ষেত্রে খুব সহজেই বুঝতে পারবে আপনি কোন বিষয়ে পোষ্ট লিখেছেন। আপনি থাম্বনেল বানানোর ক্ষেত্রে PixelLab অ্যাপটি ব্যবহার করতে পারেন!

রিলেটেড কন্টেন্ট

আপনি যে কনটেন্টগুলো লিখবেন তার মাঝে মাঝে কয়েকটি রিলেটেড কন্টেন দিতে পারেন এক্ষেত্রে যে আপনার কনটেন্ট পড়বে সে পড়ার মাঝে বাকি কন্টেন্ট গুলো দেখতে পারবে এতে সে ওই কন্টেন্ট গুলো পড়তে চাইবে। এতে করে আপনি ভালো অর্গানিক ভিসিটর ও পাবেন। এই রিলেটেড কন্টেন্ট এসইও এর জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। এতে করে আপনি আপনার অন্যান্য কন্টেন্ট গুলাও প্রোমোট করতে পাচ্ছেন।

কিভাবে আপনি আপনার কনটেন্ট এসইও ফ্রেন্ডলি তো আজকে আমরা এ বিষয়ে আলোচনা করলাম পরবর্তীতে আরও গুরুত্বপূর্ণ কোন বিষয় নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হবে সে পর্যন্ত ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন আমাদের সাইটের সঙ্গেই থাকুন আর আপনার যদি টিউটোরিয়াল টি ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না আল্লাহ হাফেজ

admin

আমি সাগর। আমি একজন ব্লগার এবং ইউজার ইন্টারফেজ ডিজাইনার। আমি প্রতিনিয়ত চেষ্টা করি আমার ব্লগের মাধ্যমে নতুন নতুন তথ্য শেয়ার করতে।

Related Articles

One Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button